ঢাকা, ১০ এপ্রিল শুক্রবার, ২০২০ || ২৬ চৈত্র ১৪২৬
good-food
১২৪

শিল্পী কাজলের তৈলচিত্রে মুক্তিযুদ্ধ ও নৈসর্গিক বাংলাদেশ

লাইফ টিভি 24

প্রকাশিত: ১৯:৫৫ ৩ মার্চ ২০২০  

ক্যানভাসজুড়ে মুক্তিযুদ্ধের ঘটনাপ্রবাহ। কোথাও পাক হানাদার বাহিনীর নির্যাতন, কোথাও বঙ্গবন্ধুর ভাষণ, কোথাও মুক্তিযোদ্ধাদের অভিযানের প্রস্তুতির ছবি। রং-তুলির পরিশীলিত আঁচড়ে প্রত্যেকটি চিত্রপটে ঠাঁই পেয়েছে বাঙালির মুক্তি সংগ্রামের অবয়ব। আবার কোনো ক্যানভাসে দুই বা ততোধিক মানুষের প্রতিকৃতি। কোনো গ্রাম-বাংলায় ছড়িয়ে থাকা অসাধারণ সৌন্দর্য। 
তেলরঙের জমিনে আঁকা ছবিগুলোয় প্রতিটি অবয়বে উদ্ভাসিত হয়েছে বাঙালির সংগ্রাম ও বাংলার সৌন্দর্যের ভিন্ন-অভিন্ন চিত্র। এ ছবিগুলো এঁকেছেন ৬৫ বছর বয়সী স্বশিক্ষিত শিল্পী আখতার মাহমুদ কাজল। সেসব ছবি নিয়ে রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালা ভবনের ৬ নম্বর গ্যালারিতে 'মুক্তিযুদ্ধ ও নৈসর্গিক বাংলাদেশ' শিরোনামে চলছে প্রদর্শনী। 
প্রদর্শনীতে কাজলের ১০১টি তৈলচিত্র স্থান পেয়েছে। বাঙালির লড়াই সংগ্রামকে কেন্দ্র করে আঁকা প্রতিকৃতি, তাদের মুখাবয়ব ও অভিব্যক্তি, সেই সঙ্গে প্রকৃতি-অনুপ্রাণিত বিমূর্ত ভাব তার চিত্রকর্মকে এনে দিয়েছে স্বতন্ত্র শৈলী। ৪০ বছর ধরে শিল্পচর্চা করলেও প্রথমবারের প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হচ্ছে ৬৫ বছর বয়সী এ শিল্পীর। 
সোমবার শিল্পকলা একাডেমিতে ১০ দিনব্যাপী এ প্রদর্শনীর সূচনা হয়। প্রধান অতিথি হিসেবে প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের প্রধান কৌসুলি এবং একুশে পদক বিজয়ী ভাষাসৈনিক এডভোকেট গোলাম আরিফ টিপু। এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন শিল্পী সমরজিৎ রায় চৌধুরী, একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী, সিনিয়র সাংবাদিক আনোয়ার হক।  
কাজল জন্মগ্রহণ করেন ১৯৫৫ সালে ১ জুন চাঁপাই নবাবগঞ্জের কমলাকান্তপুর গ্রামে। দারিদ্রের কষাঘাতে উচ্চশিক্ষার সুযোগ হয়নি এ স্বশিক্ষিত চিত্রশিল্পীর। মূলত তেলরঙের চিত্রকর্মে সিদ্ধহস্ত তিনি।  এ  গুণী শিল্পী বলেন, শিল্পকর্মে আমার একাডেমিক শিক্ষা নেই। মুক্তিযুদ্ধের সময় আমি স্কুলে পড়ি। বেড়ে উঠেছি গ্রামেই। বাবার পেশাগত কাজের সুবাদে ঘুরেছি দেশজুড়ে। খুব কাছ থেকে দেখেছি পাক হানাদার বাহিনীর নির্যাতন। যা আমাকে নাড়া দিয়েছে। বাংলার নৈসর্গিক সৌন্দর্যও আমাকে টেনেছে। আমার শিল্পকর্মগুলোতে এসবই তুলে ধরেছি। 
৬৫ বছর বয়সী এ চিত্রশিল্পী বলেন, দীর্ঘ ৪০ বছর তৈলচিত্রে কাজ করলেও কখনও প্রদর্শনী করিনি। একজন স্বশিক্ষিত শিল্পী হিসেবে ব্যক্তিগতভাবে শিল্পচর্চা করেছি। তবে আনুষ্ঠানিক প্রদর্শনী এবারই প্রথম।
২ মার্চ থেকে শুরু হয়েছে। ১১ মার্চ পর্যন্ত একাডেমির জাতীয় চিত্রশালা ভবনের ৬ নম্বর গ্যালারিতে ১০ দিনব্যাপী প্রদর্শনী চলবে। প্রতিদিন সকাল ১১টা থেকে রাত ৮টা এবং শুক্রবার বিকাল ৩টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত দর্শকদের জন্য উন্মুক্ত থাকছে।