ঢাকা, ১৪ জুলাই রোববার, ২০২৪ || ২৯ আষাঢ় ১৪৩১
good-food
৬৫

‘ডলারভর্তি লাগেজ’ ছাড়াতে খোয়া গেল ৭৮ লাখ টাকা

লাইফ টিভি 24

প্রকাশিত: ১৮:৩৭ ৮ জুলাই ২০২৪  

৩৫টি ব্যাংকের ৮৬টি এটিএম কার্ড, ব্যাংকের ১৫১টি চেকের পাতাসহ সোহাগ শেখ (২৪) নামের এক প্রতারককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সোহাগ শেখকে এক ব্যবসায়ীর কাছ থেকে ডলার ভর্তি লাগেজ দেওয়ার কথা বলে ৭৮ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

 

রোববার (০৭ জুলাই) বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের সদর দপ্তরে এসব তথ্য জানান উপ-কমিশনার (দক্ষিণ) আলী আশরাফ ভূঞা।

 

পুলিশের কর্মকর্তা জানান, অভিযানে গ্রেপ্তারকৃতের কাছ থেকে প্রতারণায় ব্যবহৃত একটি অ্যানড্রয়েডসহ চারটি মোবাইল সেট ও ৮টি সিম জব্দ করা হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃত সোহাগ শেখ শরিয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার কেদারপুর ইউনিয়নের পাঁচগাও গ্রামের জব্বার শেখের ছেলে। তিনি একটি মাদরাসার হাফেজি বিভাগে পড়তেন।

 

সোহাগ শেখ প্রতারক চক্রের প্রথম স্তরের প্রথম ম্যান। এখানে কমপক্ষে আরও ৪ থেকে ৫টি ধাপে ১০/১২ জনের সদস্য রয়েছে। এই চক্রের সদস্য বিদেশেও রয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

 

পুলিশের ওই উপ-কমিশনার জানান, ২০২৩ সালের ১৯ নভেম্বর বরিশাল নগরীর বাসিন্দা রত্নেশ্বর মাঝির (৬৫) মোবাইল নম্বরে খায়রুন নেছা নামে একজন ফোন দেন এবং নিজেকে চট্টগ্রাম বিমানবন্দরের সিভিল এভিয়েশন কাস্টমস অফিসার হিসেবে পরিচয় দেন।

 

এরপর তিনি জানান, রত্নেশ্বর মাঝির নামে এলিজাবেথ এ্যারিস নামের এক ব্যক্তি একটি লাগেজ পাঠিয়েছেন। লাগেজে বিপুল পরিমাণ ডলার আছে। কাস্টমসের বিভিন্ন স্তরে টাকা দিয়ে সেই লাগেজ ছাড়ানোর জন্য বলেন কথিত খায়রুন নেছা। লাগেজ ছাড়ানোর জন্য রত্নেশ্বর ২৩ দিনে বিভিন্ন ব্যাংকের অ্যাকাউন্টে ও বিকাশ নম্বরে সর্বমোট ৭৭ লাখ ৯০ হাজার টাকা পাঠান।

 

লাগেজ ছাড়ানোর জন্য আরও টাকা দাবি করলে বিষয়টি সন্দেহ হয় রত্নেশ্বরের। তিনি বুঝতে পারেন, প্রতারণার ফাঁদে পড়েছেন।  ১৫ ডিসেম্বর কোতোয়ালি মডেল থানায় মামলা করলে পুলিশ তদন্তে নামে। তদন্তে বেরিয়ে আসে প্রতারক চক্রের তথ্য।

 

চক্রের প্রথম স্তরের সদস্য সোহাগ শেখকে শনিবার (৬ জুলাই) সাইবার টিম অভিযান চালিয়ে ঢাকার মতিঝিল এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করে।
 

অপরাধ বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর