ঢাকা, ২৪ নভেম্বর মঙ্গলবার, ২০২০ || ৯ অগ্রাহায়ণ ১৪২৭
good-food
১২৪

অ্যাটর্নি জেনারেল হয়েও বেতন নিতেন না ব্যারিস্টার রফিক-উল হক

লাইফ টিভি 24

প্রকাশিত: ১৬:২৮ ২৪ অক্টোবর ২০২০  

ব্যারিস্টার রফিক-উল হক আইনি অধিকারের প্রশ্নে আপসহীন ছিলেন। এ পেশায় দীর্ঘ ৬০ বছরে অ্যাটর্নি জেনারেল হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তবে রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ পদে থেকেও বেতন নিতেন না  তিনি। বরং নিজের উপার্জন মানুষের সেবায় বিলিয়ে দিতেন। রাষ্ট্রীয় দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে জনগণের সেবকের ভূমিকা পালন করেছেন।

 

দেশের অন্যতম সংবিধান প্রণেতা ব্যারিস্টার এম আমীর উল ইসলাম সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গনে জানাজায় এসে স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে বলেন, ইংল্যান্ডে পড়াশোনার সময় তার সঙ্গে আমার পরিচয়। সমসাময়িক সময়ে আমরা সুপ্রিম কোর্টে প্র্যাকটিস শুরু করি। অনেক দান করতেন। বিশেষ করে চিকিৎসা ক্ষেত্রে ইব্রাহিম কার্ডিয়াক হাসপাতালে তিনি অনেক অনুদান দিয়েছেন। তাকে একজন দানবীর বলা যেতে পারে।

 

ব্যারিস্টার রফিক-উল হক ১৯৬৫ সালে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী হিসেবে এবং ১৯৭৩ সালে আপিল বিভাগে আইনজীবী হিসেবে আইন পেশা শুরু করেন। এরপর জেনারেল এরশাদের আমলে রাজনৈতিক হয়রানিমূলক মামলা, তখনকার স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলন এবং বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে তত্ত্বাবধায়কের আমলে দেয়া মামলা পরিচালনা করতেও ব্যারিস্টার রফিকের অবদান উল্লেখযোগ্য।

 

১৯৯০ সালের ৭ এপ্রিল থেকে ১৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ আইন কর্মকর্তা অ্যাটর্নি জেনারেল হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন রফিক-উল হক। এসময়ে তিনি কোনো সম্মানি নেননি। পেশাগত জীবনে কখনো কোনো রাজনৈতিক দল করেননি। তবে নানা সময়ে রাজনীতিবিদরা তাকে পাশে পেয়েছেন।