ঢাকা, ১৭ নভেম্বর রোববার, ২০১৯ || ২ অগ্রাহায়ণ ১৪২৬
LifeTv24 :: লাইফ টিভি 24
৩৫৬

সবুজ ভালবাসা

গাছ উপহার পেল ছাদবাগানের ক্ষতিগ্রস্ত সেই পরিবার

প্রকাশিত: ২০:৪৬ ২৩ অক্টোবর ২০১৯  


গাছপালা ভীষণ প্রিয়। সেই ভালো লাগা থেকে সাভারের সিআরপি রোডে বাড়ির ছাদে বাগান করেন আহসান হাবিবের পরিবার। কিন্তু সেই গাছ নির্বিচারে কেটে ফেলেন এক ডাইনি। ক্ষতিগ্রস্ত সেই পরিবারকে শতাধিক গাছ উপহার দিয়েছে পরিবেশবাদী সংগঠন ‘গ্রিন সেভার্স অ্যাসোসিয়েশন’। বুধবার দুপুরে ভুক্তভোগী আহসানের বাসায় গিয়ে এসব গাছ তুলে দেয় সংগঠনটি।

এর আগে খালেদা আক্তার লাকি (৪৫) নামের নারী দা দিয়ে নির্বিচারে সেই ছাদবাগানের সব গাছ কেটে ফেলেন।  এর ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। এতে সমালোচনার ঝড় ওঠে। পরে সাভার থানায় অভিযোগ করেন আহসান। বুধবার সকালে সেই নারীকে আটক করে পুলিশ।

গ্রিন সেভার্স অ্যাসোসিয়েশনের প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি আহসান রনি জানান, যেভাবে গাছগুলোকে কাটা হয়েছে, সত্যি আমরা মর্মাহত। যাদের গাছ কাটা হয়েছে তাদের দুঃখ লাগবে। আমরা কিছু গাছ তাদের হাতে তুলে দিয়েছি। তাদের সুন্দর একটি বাগান সাজিয়ে দিতে চাই।

দেশের প্রথম গাছের হাসপাতালের এ প্রতিষ্ঠাতা আরো বলেন, আমরা যে গাছগুলো নিয়েছিলাম এই গাছগুলোও এক-একটি প্রতিবাদের অংশ এবং গাছ হারানো সুমাইয়ার কষ্ট লাঘবের চেষ্টা করেছি। কারণ একটি গাছ অনেক যত্নে বড় করতে হয়। আর তা যদি চোখের সামনেই একজন কেটে ফেলে, সেই কষ্ট অনেক বড়। এখন সে নতুন গাছ পেয়ে হয়তো কিছুটা স্বস্তি পাবেন। যতগুলো গাছ কাটা হয়েছে এবং যে যে জাতের গাছ কাটা হয়েছে সেগুলো আমরা তাকে দিয়েছি।

দীর্ঘদিন ধরে ছাদ বাগান নিয়ে কাজ করা এই বৃক্ষপ্রেমী আরো বলেন, আমরা এই বিষয়গুলো নিয়ে কাজ করছি। বিষয়টি স্পর্শকাতর। একটি বাড়ির সবাই বাগান করে না। কিন্তু গাছগুলো সবাইকেই অক্সিজেন দেয়। তাদের (সুমাইয়ার) ফ্লাট মালিক সমিতি থেকে এক মাসের মধ্যে গাছগুলো সরিয়ে ফেলার জন্য সময় দেয়া হয়েছিলো। কিন্তু ছাদে যে গাছগুলো থাকে সেগুলো তো আর রুমে বা বারান্দায় রাখা যায় না। এগুলো তো প্রচন্ড রোদে বাঁচে। তাই গাছগুলো সরিয়ে নেয়ার কোন উপায় ছিলো না। তাই সে গাছগুলোকে ছাদে রেখেছিলেন তাও আবার এক কোনায়।

অন্য ফ্লাট মালিকদের যুক্তি হচ্ছে একজনের গাছ কেনো ছাদে থাকবে। যদি সবার গাছ হতো তাহলে থাকতো। এছাড়া তারা হাস্যকর একটি যুক্তি দেখিয়েছেন, গাছ নাকি ছাদের পরিবেশ নষ্ট করে। তখন আমি তাদের প্রশ্ন করেছিলাম, আপনারা পরিবেশ বলতে কি বুঝেন? তারা কোনো উত্তর দিতে পারেননি।

তবে এই ঘটনার পরে এখন তারা কথা দিয়েছে গাছগুলো যত্ন করে রাখবে। আমরা গাছগুলো তাদের হাতে তুলে দিয়েছি। আমরা তাদেরকে অনুরোধ করেছি, আপনারা গাড়ি রাখার জন্য যেমন গ্যারেজ নির্দিষ্ট করে দেন ঠিক তেমনি ছাদে বাগান করার জন্যও যায়গা নির্ধারণ করে দিবেন। এছাড়াও ছাদে গাছের যত্ন করার জন্য মালি রাখার বিষয়েও আমরা কথা বলেছি। আশা করছি এবার ওই ভবনে আমরা একটি ছাদ বাগান দেখতে পাবো।