ঢাকা, ০৮ এপ্রিল বুধবার, ২০২০ || ২৪ চৈত্র ১৪২৬
good-food
৩৫

বঙ্গবন্ধুর জন্মক্ষণেই মুজিববর্ষের উদ্বোধন 

লাইফ টিভি 24

প্রকাশিত: ২১:২৯ ১২ মার্চ ২০২০  

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মক্ষণের সঙ্গে মিল রেখেই শুরু হচ্ছে ‘মুজিববর্ষের’ আনুষ্ঠানিকতা। আগামী ১৭ মার্চ রাত ৮টায় উদ্বোধন হবে জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীর কর্মসূচি।
বৃহস্পতিবার বিকালে রাজধানীর আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির প্রধান সমন্বয়ক কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী এ তথ্য জানান।
এসময় তিনি ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন নিয়ে সারাদেশের বিভাগীয় কমিশনার এবং জেলা প্রশাসকদের নানা নির্দেশনা দেন।
নাসের চৌধুরী জানান, ১৭ মার্চ রাত ৮টায় দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলার বিভিন্ন স্থানে জনসমাগম এড়িয়ে আতশবাজির আয়োজন করা হবে। এর মাধ্যমেই শুরু হবে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর মূল আয়োজন।
তিনি বলেন, জন্মশতবার্ষিকীর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হবে রাত ৮টায়। কারণ এ সময়েই বঙ্গবন্ধু জন্মগ্রহণ করেন। আমরা সেসময়টি থেকেই উৎসবমুখর পরিবেশে জন্মশতবর্ষের আয়োজন শুরু করতে চাই।
নাসের চৌধুরী জানান, সব বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসকদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে, যেন ১৭ মার্চ রাতে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে একইসঙ্গে আতশবাজির আয়োজন করা হয়। একইসঙ্গে সেদিন টিভি চ্যানেলগুলোতে সম্প্রচারিত অনুষ্ঠানগুলো যেন সর্বস্তরের জনগণ দেখতে পারেন, সের বন্দোবস্ত করতেও নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।
স্বাধীনতার স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ উদযাপনে আগামী ১৭ মার্চ থেকে এক বছর ‘মুজিববর্ষ’ ঘোষণা করা হয়েছে। ওই দিন বছরব্যাপী কর্মসূচির উদ্বোধন হবে। এ উপলক্ষে বিভিন্ন দেশের সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধানসহ অতিথিদের নিয়ে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। তবে বিশ্বজুড়ে নভেল করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে তা স্থগিত করা হয়েছে।
জনস্বাস্থ্য বিবেচনায় জনসমাগম এড়িয়ে ১৭ মার্চ সীমিত পরিসরে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনের অনুষ্ঠান উদযাপন করা হচ্ছে। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে সংক্ষিপ্ত আয়োজনের মধ্যে রয়েছে, ১৭ মার্চে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ নিয়ে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রীর ভাষণের পর বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে সম্প্রচারিত হবে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। ১০০ জন বাদ্যযন্ত্রী সেদিন একসঙ্গে যন্ত্রসঙ্গীত পরিবেশন করবেন। 
বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে যে থিম সং করা হয়েছে, সেটি সেদিন শিল্পীরা গেয়ে শোনাবেন। এছাড়া ‘চিত্রপটে, দৃশ্যকাব্যে বঙ্গবন্ধু’ শিরোনামে একটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানও সম্প্রচারিত হবে টিভি চ্যানেলগুলোতে।