ঢাকা, ১৮ জুন শুক্রবার, ২০২১ || ৪ আষাঢ় ১৪২৮
good-food
৭৭

এইচআইভি প্লাস নারীর দেহে ৩২ প্রজাতির করোনা! কাঁপছে বিশ্ব

লাইফ টিভি 24

প্রকাশিত: ২৩:৫৭ ৬ জুন ২০২১  

রূপ ও চরিত্র বদলে প্রতিদিনই আরও ভয়ঙ্কর হয় উঠছে করোনা। শুরু থেকেই চরিত্র বদল করে বিশ্বের জন্য ত্রাস সৃষ্টি করেছে আরএনএ ভাইরাস সারস কোভ-২। তবে এবার যে ঘটনা সামনে এসেছে তা আরও ভয়ানক।


দক্ষিণ আফ্রিকার ৩৬ বছর বয়সী এইচআইভি প্লাস নারীর দেহে পাওয়া গিয়েছে কোভিড-১৯। এইচআইভি ভাইরাস হলো আরএনএ ভাইরাস। সঙ্গে কোভিড যুক্ত হওয়ায় ওই নারীর দেহে ৩২ বার নিজের রূপ ও চরিত্র বদলেছে করোনা। হয়ে উঠেছে মারণঘাতি।


এমনিতেই এইচআইভি ভাইরাসে কেউ আক্রান্ত হলে তার দেহে ধীরে ধীরে কমতে থাকে রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা। ২০০৬ সালে ওই নারী এইচআইভি ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিলেন। ২০২০ সালের সেপ্টেম্বরে তিনি আক্রান্ত হন করোনায়। দেখা গিয়েছে দুই মারণ ভাইরাসের সংযোগে করোনার স্পাইক প্রোটিনের ১৩ বার মিউটেশন হয়েছে।


বৃহস্পতিবার মেডিকেল জার্নাল এমইডিআরএক্সআইভিতে প্রকাশিত হয়েছে এখন পর্যন্ত ওই নারীর দেহে ই৪৮৪কে মিউটেশনের পর আলফা ভ্যারিয়েন্ট বি ১,১,৭ পাওয়া গিয়েছে। এর সঙ্গে সঙ্গেই এন৫১০ওয়াই মিউটেশনের জেরে তৈরি হয়েছে বি ১৩৫১ ভ্যারিয়েন্ট।


গবেষকদের চিন্তা বিষয় হলো এই ভ্যারিয়েন্টগুলো কতটা ছড়িয়ে পড়েছে সেটা। তা যদি হয় তাহলে ফের নতুন করে করোনার ঝড় শুরু হতে পারে বিশ্বে। এখনও পর্যন্ত ব্রিটেন, দক্ষিণ আফ্রিকা ও ভারতের মহাসংক্রমক করোনা স্ট্রেন নিয়ে বিপর্যস্ত হয়েছে বিশ্বের নানা দেশ।


এইচআইভি সংক্রমিত ব্যক্তিরা কোভিড আক্রান্ত হলে তা মারাত্মক হয়। প্রাণহানির ঝুঁকিও বেশি থাকে। যেহেতু এদের দেহে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা থাকে না প্রায়, সেই কারণে এরা খুব সহজেই কোভিডের বাহক হয় এবং মিউটেশন চলে দুই ভাইরাসের মধ্যে। 


গবেষকরা বলেছেন, আরও এই জাতীয় ঘটনা যদি পাওয়া যায়, তাহলে এইচআইভি ব্যক্তিরাই করোনার নানা মিউটেশন সংক্রমণের নেপথ্যে থাকবেন। বিশ্বের জন্য তা চিন্তার।
 

করোনাভাইরাস বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর