ঢাকা, ২৫ সেপ্টেম্বর শুক্রবার, ২০২০ || ৯ আশ্বিন ১৪২৭
good-food
৯৪

দেশের গর্ব মেরিনা তাবাসসুম ও তার স্থাপত্য

লাইফ টিভি 24

প্রকাশিত: ১৮:৩৬ ১০ সেপ্টেম্বর ২০২০  

বাংলাদেশের জন্য বিশাল সম্মান বয়ে এনেছেন বিখ্যাত স্থপতি মেরিনা তাবাসসুম। সম্প্রতি ব্রিটিশ সাময়িকী প্রসপেক্টের ৫০ চিন্তাবিদের মধ্যে শীর্ষ ১০-এ স্থান করে নিয়েছেন তিনি। ১০ জনের মধ্যে তৃতীয় স্থানে আছেন এ মেধাবী ব্যক্তিত্ব।
সাময়িকীটিতে বলা হয়, মেরিনা প্রাকৃতিক পরিবেশের সঙ্গে মিল রেখে ভবন নির্মাণ এবং পরিবেশে উদ্ভূত চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করে নকশা তৈরি করায় অসাধারণ অবদান রেখেছেন। তার ডিজাইন করা স্থানীয় উপকরণের হালকা ওজনের বাড়ি স্টিলের ওপর দাঁড়িয়ে থাকতে সক্ষম। অধিকন্তু পানির মাত্রা বেড়ে গেলে সেগুলো সরানো যায়। বিষয়গুলো আন্তর্জাতিকভাবে ভূয়সী প্রশংসা কুড়িয়েছে।
এতে উল্লেখ করা হয়, এক বাস্তব সমস্যার দিকে মনোনিবেশ করেছেন মেরিনা। আর সেটি হলো জলবায়ু পরিবর্তন। এর ফলে পানির উচ্চতা বৃদ্ধি পেলে সেই উপযোগী ঘরবাড়ি তৈরির নকশা করেছেন তিনি।
মেরিনা ২০১৬ সালে আগা খান অ্যাওয়ার্ড ফর আর্কিটেকচার পুরস্কার পান। ঢাকার উত্তরে দক্ষিণখান এলাকায় নিজ দাদীর দান করা জমিতে স্থাপিত বায়তুর রউফ মসজিদের স্থাপত্যের জন্য এ পুরস্কার লাভ করেন। ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে নির্মিত ভূগর্ভস্থ মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের দু’জন নকশাবিদের অন্যতম তিনি। তার উল্লেখযোগ্য কাজের মধ্যে আছে রাজধানীর স্বাধীনতা স্তম্ভ ও লালমাটিয়ার ‘এ ফাইভ অ্যাপার্টমেন্ট রেসিডেন্স’। 
মেরিনা ১৯৬৮ সালে ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন। পড়াশোনা করেন হলিক্রস স্কুল অ্যান্ড কলেজে। ১৯৮৮ সালে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) ভর্তি পরীক্ষায় প্রায় ৩ হাজার শিক্ষার্থীদের মধ্যে প্রথম স্থান লাভ করেন। ১৯৯৫ সালে বুয়েটের স্থাপত্য বিভাগ থেকে পাস করে প্রতিষ্ঠা করেন আরবানা। এরপর গড়ে তোলেন নিজের প্রতিষ্ঠান এমটিএ। 
মেরিনা ভিজিটিং প্রফেসর হিসেবে পাঠদান করেন ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় এবং ইউনিভার্সিটি অফ টেক্সাসে। বর্তমানে তিনি ‘বেঙ্গল ইন্সটিটিউট ফর আর্কিটেকচারস্ ল্যান্ডস্কেপস্ এন্ড সেটেলমেন্টস্’ এ ডিরেক্টর (একাডেমিক) হিসেবে কর্মরত আছেন।