ঢাকা, ২০ অক্টোবর মঙ্গলবার, ২০২০ || ৫ কার্তিক ১৪২৭
good-food
১২০

মোবাইলের আইএমইআই নম্বর কী, পরিবর্তনে ঝুঁকি কতটুকু?

লাইফ টিভি 24

প্রকাশিত: ১২:৪০ ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০  

মোবাইল ফোনের আইএমইআই নম্বর পরিবর্তন কী ঝুঁকি তৈরি হতে পারে? - খুবই জরুরি এ প্রশ্নটিরে উত্তর জানা নেই অনেকেরই।

 

আসলে আইএমইআই নম্বর প্রত্যেক ফোনের জন্য আলাদা এবং এই সুনির্দিষ্ট নম্বর দিয়ে মোবাইল নেটওয়ার্কে কোন একটি সুনির্দিষ্ট মোবাইলের অবস্থান চিহ্নিত করা সম্ভব।

 

বাংলাদেশ পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ গেল বুধবার রাতে অবৈধ ও চোরাই মোবাইল বিক্রির সাথে জড়িত একটি চক্রের বেশ কয়েকজন সদস্যকে আটক করেছে, যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে যে তারা মোবাইল হ্যান্ডসেটের আইএমইআই নম্বর পরিবর্তন করে বাজারে বিক্রি করে আসছিলো।

 

পুলিশের ডিবি এবং সিআইডি বিভাগের সদস্যরা ২০ জনকে আটক করে, যাদের কাছে বেশ কিছু চোরাই মোবাইল ফোন ছাড়াও হ্যান্ডসেটের আইএমইআই নম্বর পরিবর্তন করার কয়েকটি ডিভাইস পাওয়া যায়।

 

এই অপরাধীরা চুরি করা বা ব্যবহৃত মোবাইল কিনে আইএমইআই নম্বর পরিবর্তন করে বাজারে বিক্রি করতো বলে জানিয়েছে পুলিশ।

 

পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ বলছে, অপরাধ সংঘটনের ক্ষেত্রে পরিবর্তিত আইএমইআই নম্বরের ফোন সেট ব্যবহার করলে অপরাধীকে খুঁজে বের করার সুযোগ কমে যায়।

 

বৃহস্পতিবার সংবাদ সম্মেলনে সিআইডির অতিরিক্ত ডিআইজি শেখ রেজাউল হায়দার বলেন, "চুরি হওয়া ফোনের আইএমইআই নম্বর পরিবর্তন করলে ঐ ফোন খুঁজে পাওয়া প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়ে। আবার অপরাধীরা অপরাধ করার আগে এই ধরনের ফোন হাতে পেলে এর ফায়দা নিতে পারে, কারণ তখন ফোনের মাধ্যমে অপরাধীকে আর খুঁজে পাওয়া সম্ভব হয় না।"

 

রেজাউল হায়দার জানান আটক হওয়া ব্যক্তিরা অবৈধভাবে আমদানি করা কিছু ডিভাইস দিয়ে ফোনের আইএমইআই নম্বর পরিবর্তন করে আসছিল এবং বাংলাদেশের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন অনুযায়ী ফোনের আইএমইআই নম্বর পরিবর্তন করা অপরাধ হিসেবে বিবেচিত হয়।

 

আইএমইআই নম্বর কী?


আইএমইআই বা ইন্টারন্যাশনাল মোবাইল ইকুইপমেন্ট আইডেন্টিটি নম্বর একটি ১৫ ডিজিটের নম্বর, যেটি কোনো মোবাইল হ্যান্ডসেট তৈরি করার সময় এর মধ্যে প্রোগ্রাম করা থাকে।  এই নম্বরটি মূলত মোবাইল হ্যান্ডসেটটির পরিচয় বহন করে।

 

এই নম্বরের মাধ্যমে চিহ্নিত করা হয় যে ফোনটি কোন এলাকায় ব্যবহার করা যাবে এবং কোন ফ্যাক্টরিতে এটি তৈরি হয়েছে।

 

এছাড়া আইএমইআই নম্বরের মধ্যেই ফোনটির জন্য একটি স্বতন্ত্র সিরিয়াল নম্বর এবং পুরো নম্বরটি যাচাই করার জন্য একটি সংখ্যা দেয়া থাকে।

 

সাধারণত হ্যান্ডসেট হারিয়ে গেলে বা চুরি হয়ে গেলে এই আইএমইআই নম্বরের মাধ্যমে হ্যান্ডসেটটির অবস্থান খুঁজে বের করা সম্ভব হয়।

 

এছাড়া নতুন ফোন কেনার সময় ঐ ফোনের আইএমইআই নম্বরের মাধ্যমে জানা যেতে পারে যে ঐ ফোনটি এর আগে কখনো ব্যবহার করা হয়েছে কি না। আইএমইআই নম্বর পরিবর্তনের ফলে ব্যক্তিগত নিরাপত্তার পাশাপাশি অর্থনৈতিক লেনদেনের নিরাপত্তাও বিঘ্নিত হওয়ার ঝুঁকি থাকে। 

 

নম্বর পরিবর্তনে নিরাপত্তার ঝুঁকি

 

প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞরা বলছেন, একটি সেটের আইএমইআই নম্বর পরিবর্তন করা সম্ভব হলে যে কারো ব্যক্তিগত নিরাপত্তা ঝুঁকির মুখে পড়তে পারে।

 

সিম ক্লোন করার প্রযুক্তি অনেক আগেই আবিষ্কার হয়েছে। এখন যদি আইএমইআই নম্বরও ক্লোন করা সম্ভব হয়, তাহলে যে কারো পরিচয় নকল করে অপরাধ সংঘটন করা সম্ভব হবে এবং আইএমইআই পরিবর্তন করার কারণে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীও ঐ ফোনের অবস্থান নির্ণয় করতে পারবে না।

 

একই সাথে সিম এবং ফোনসেট-এর পরিচয় ক্লোন করার ফলে এই ধরণের ক্ষেত্রে ব্যক্তিগত নিরাপত্তার পাশাপাশি অর্থনৈতিক লেনদেনের নিরাপত্তাও বিঘ্নিত হওয়ার ঝুঁকি থাকে।

 

এছাড়া কোনো ফোনসেট কেনার আগে সেটি চুরি করা কিনা বা নকল কিনা তা যাচাই করে দেখার জন্যও আইএমইআই নম্বর দরকার হয়।

 

ফোনসেট চুরি করা হলে আইএমইআই নম্বরের এবং মোবাইল অপারেটরের সাহায্যে জানা সম্ভব যে সেটি এর আগে ব্যবহার করা হয়েছে কিনা। কিন্তু আইএমইআই পরিবর্তন করা হলে বোঝা সম্ভব নয় যে এর আগে ফোনটি ব্যবহার করা হয়েছে কিনা। তখন কম দামে চোরাই ফোন বিক্রি করা সহজ হয়ে যায়।


ফোনের আইএমইআই নম্বর যাচাই প্রক্রিয়া


আপনার ব্যবহারের হ্যান্ডসেটটি আসল কিনা এবং যেসব উপকরণ ফোনের সাথে সংযুক্ত রয়েছে বলা হয়েছে, আসলেই সেই একই উপকরণ ফোনের সাথে রয়েছে কিনা তা যাচাই করার একটি পদ্ধতি রয়েছে।

 

আপনার ফোনে *#06# ডায়াল করলে আইএমইআই নম্বর দেখাবে।

 

এবার আইএমইআই.ইনফো ওয়েবসাইটে গিয়ে ১৫ ডিজিটের আইএমইআই নম্বরটি বসান এবং 'চেক' বাটনে চাপুন।

 

পরের পেইজে আপনার ফোনের মডেল নম্বর, কোন সালে তৈরি করা হয়েছে, ফোনে কী কী উপকরণ রয়েছে এ সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য আসবে।

 

যদি সেসব তথ্য না আসে তাহলে আপনার ফোনটি নকল বা এর আইএমইআই নম্বর পরিবর্তন করা হয়েছে - এমন হতেও পারে।