ঢাকা, ১৫ নভেম্বর শুক্রবার, ২০১৯ || ৩০ কার্তিক ১৪২৬
LifeTv24 :: লাইফ টিভি 24
৩৪১

শিশুরা মিথ্যা বলে কেন?

প্রকাশিত: ২১:৫৬ ৯ জানুয়ারি ২০১৯  


ইতালির বিখ্যাত লেখক কার্লো কলোদির ‘পিনোকিও’ গল্পটির কথা নিশ্চয় মনে আছে। পিনোকিও নামের কাঠের পুতুলটি ভারী দুষ্টু ছিল। পরীর কাছে মিথ্যা বলেছিল বলে তার নাক বড় হয়ে গিয়েছিল।

গল্পের মতোই বাস্তবে মিথ্যা বলার অভ্যাস ছোট-বড় অনেকের মধ্যেই দেখা যায়। কঠিন পরিস্থিতিতে পড়লে শাস্তির ভয়ে বা স্বভাববশত অনেক মানুষ মিথ্যা বা বানিয়ে কথা বলে। অনেক সময় শিশুরা মিথ্যা বলে।

অন্যতম কারণ হতে পারে, তারা এমন অনেক কিছু করতে বা বলতে পছন্দ করে যা তাদের মা-বাবা করে না। যদি বিষয়গুলো বন্ধ করতে চান-তাহলে বকাঝকা না করে, শিশুর সঙ্গে বসুন, কথা বলুন। ধীরে ধীরে তাকে মিথ্যা বলা খারাপ- এটি বুঝিয়ে বলুন। জীবনে সৎ থাকা কেন জরুরি সেটা বোঝান এবং সৎ হওয়ার প্রশিক্ষণ দিন। 

জীবনধারা বিষয়ক ওয়েবসাইট বোল্ডস্কাই জানিয়েছে শিশুর মিথ্যা বলার কিছু কারণের কথা।

১. শাস্তির ভয়ে

কোনো ভুল বা অপরাধ করলে শাস্তির ভয়ে বা মা-বাবার বকাঝকার ভয়ে শিশুরা মিথ্যা বলে। মূলত কঠিন মুহূর্তে নিজেকে বাঁচানোর জন্য মিথ্যা বলে তারা।

২. অন্যের মনোযোগ কাড়তে

অনেক সময় অন্যের মনোযোগ আকর্ষণ করতে শিশুরা মিথ্যা বলে। যদি বোঝেন এজন্য শিশু মিথ্যা বলে তাহলে শিশুর সঙ্গে কথা বলুন। এটা বিব্রতকর সেটা বোঝান।  

৩. অভ্যাস

শিশুরা যদি মা-বাবাকে প্রায়ই মিথ্যা কথা বলতে দেখে, তাহলেও কিন্তু সে তা বলা শেখে। বিষয়টি তারও অভ্যাসে পরিণত হয়ে যায়। তখন অযথাই মিথ্যা বলে। 

৪. অভিভাবকের খামখেয়ালি

শিশু মিথ্যা বললে তাকে থামানো দরকার। যদি অভিভাবক হিসেবে আপনি জিনিসটি না করতে পারেন, তাহলে শিশু বারবার এটি করতে থাকবে। সে বুঝে যাবে, মিথ্যা বলেও পার পাওয়া যায়। তাই সে অন্যায়টি বারবার করবে। তাই মা বাবার উচিত শিশুকে সত্য-মিথ্যার পার্থক্য বোঝানো।