ঢাকা, ৩১ অক্টোবর শনিবার, ২০২০ || ১৬ কার্তিক ১৪২৭
good-food
৬১

ননস্টিক পাত্রে রান্না, হতে পারে ক্যান্সারসহ মারাত্মক যত রোগ

লাইফ টিভি 24

প্রকাশিত: ২৩:০১ ১৪ অক্টোবর ২০২০  

বর্তমানে অনেকেই স্বাস্থ্য সচেতন। শরীর ফিট রাখতে করছেন নিয়মিত ওয়ার্কআউট। সেই সঙ্গে ফাস্টফুড, তেলে ভাজা, মশলাদার খাবার ছেড়ে দিয়েছেন। টাটকা শাকসবজি-ফল খাচ্ছেন বেশি করে। কিন্তু শারীরিকভাবে সুস্থ থাকতে হলে শুধু খাওয়া বা শরীরচর্চার দিকে মনোযোগ দিলেই চলবে না। পাশাপাশি খেয়াল রাখতে হবে কোন ধরনের পাত্রে খাবার রান্না হচ্ছে। 

 

যুগের পরিবর্তনে রান্নাঘরে এসেছে আমূল বদল। আধুনিক যুগে বেড়েছে মডিউলার কিচেন কনসেপ্ট। সেই সঙ্গে গত কয়েক বছরে খুব বেড়েছে ননস্টিক পাত্রের ব্যবহার। কেউ কেউ বিশ্বাস করেন, এ পাত্রে খাবার রান্না করলে তেল কম লাগে এবং পাত্রের তলায় খাবার লাগে না। 

 

কিন্তু গবেষণা বলছে, ননস্টিকের ফ্রাইং প্যান বা কড়াই স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। রান্নায় এ পাত্রগুলো ব্যবহারের ফলে ক্যান্সারের মতো মারাত্মক রোগও হতে পারে। 

 

ননস্টিকের পাত্রে থাকে বিষাক্ত কেমিক্যাল
ননস্টিক পাত্রগুলো ‘টেফলন' দিয়ে তৈরি করা হয়। এটি হলো পলিটেট্রা ফ্লোরোইথিলিনের কোটিং। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে টেফলনের সঙ্গে পারফ্লোরো অক্টানয়েট অ্যাসিড পলিমার দিয়ে প্রসেস করা হয়। এটি বিষাক্ত পদার্থ। 

 

ফলে অত্যাধিক তাপে ননস্টিকের পাত্রে রান্না করলে কিংবা পাত্রটি খুব গরম হলে ধোঁয়া উঠতে থাকে, যা শ্বাস-প্রশ্বাসের মাধ্যমে শরীরে প্রবেশ করে রক্তের সঙ্গে মেশে। এটি স্বাস্থ্যের পক্ষে খুবই ক্ষতিকারক। এখন অনেক ননস্টিক পাত্রে জেনেক্স ব্যবহৃত হচ্ছে। যে কারণে এখন এগুলোতে লেখা থাকে পিএফওএ ফ্রি। তবে এটিও স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর হতে পারে। 

 

ননস্টিক পাত্র বেশি ব্যবহারের ফলে যে সমস্যা হতে পারে 
৩০০ ডিগ্রি সেলসিয়াস বা এর বেশি তাপমাত্রায় ননস্টিক পাত্রের টেফলন কোটিং বাষ্পীভূত হয়ে বিষাক্ত গ্যাস তৈরি করে। রান্নার উপাদান বা খাবারে এ গ্যাস মিশে যায়। এ ধোঁয়া নাকের মধ্যে গেলে শরীরের নানা সমস্যা দেখা দেয়। ঠাণ্ডা লাগা, জ্বর, মাথাব্যথার মতো সাধারণ লক্ষণ দেখা দেয়। গবেষণায় দেখা গেছে, টেফলনের অত্যধিক গরম হওয়ার কারণে ফুসফুসের সমস্যা হয়। 

ননস্টিক পাত্র ব্যবহারের সময় যে বিষয়গুলো খেয়াল রাখবেন 
১. ননস্টিক প্যান প্রি-হিট করবেন না। এটি গরম করার আগে খাবার বা কোনও তরল পদার্থ, যেমন - পানি ঢেলে দিন, যাতে তাপমাত্রায় টেফলন কোটিং ভেঙে গিয়ে বিষাক্ত গ্যাস তৈরি করতে না পারে। উচ্চ তাপমাত্রায় রান্না না করার চেষ্টা করুন। 
২. ননস্টিক পটে খাবার রান্না করার সময় সর্বদা কাঠের চামচ ব্যবহার করুন। 

৩. ননস্টিক পাত্র পুরনো হয়ে গেলে এবং টেফলন কোটিং উঠে গেলে পাত্রটি পরিবর্তন করুন। 
৪. ননস্টিকের পাত্র ধোয়ার সময় স্কচবাইট ব্যবহার করবেন না। কারণ এর ফলে এ টেফলনের প্রলেপ দ্রুত ক্ষয়ে যায়।