ঢাকা, ১৭ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার, ২০১৯ || ২ আশ্বিন ১৪২৬
LifeTv24 :: লাইফ টিভি 24
২১৭

মশা তাড়ানোর কার্যকর ১০ উপায় [ভিডিও]

প্রকাশিত: ২১:০৫ ২ আগস্ট ২০১৯  


এক পীড়াদায়ক পতঙ্গের নাম মশা। আকারে ক্ষুদ্র হলেও রাতের ঘুম হারাম করে দিতে সক্ষম এটি। এখন দিনের বেলায়ও এর যন্ত্রণা থেকে রক্ষা নেই। এতটুকু হলেও দুশ্চিন্তা মুক্ত থাকা যেত। কিন্তু বিরক্তিকর উপদ্রবের পাশাপাশি তারা রোগজীবাণু সংক্রমণ করে। যা অনেক সময় মানুষের মৃত্যুর কারণ হতে পারে।
মশার মাধ্যমে চিকুনগুনিয়া, ম্যালেরিয়া, ডেঙ্গু, ফাইলেরিয়া, পীত জ্বর, জিকা ভাইরাস প্রভৃতি মারাত্মক রোগ সংক্রমিত হয়। স্প্রে, কয়েল, অ্যারোসল কোনও কিছুতেই এটি তাড়ানো সহজ নয়। আবার এসব দিয়ে তা তাড়ালেও আমাদের স্বাস্থ্য ঝুঁকি থাকে। তাই প্রাকৃতিক উপায়ে মশা তাড়ানোর ব্যবস্থা করা জরুরি। চলুন জেনে নেয়া যাক, ভয়ংকর কীট তাড়ানোর সহজ ও কার্যকরী ১০ উপায়-
১. ফ্যান চালু: মশা খুবই হালকা। সেগুলোর উড়ার গতিবেগের চেয়ে ফ্যানের ঘোরার গতি অনেক বেশি। ফলে সহজেই মশা ব্লেডের কাছে টেনে নেয়। বসার স্থান কিংবা যেসব স্থান থেকে মশা খুব সহজে বাসায় ঢুকতে পারে, সেসব স্থানে আগমনের সময়ে টেবিল বা পেডাল ফ্যান চালু রাখতে হবে।
২. হলুদ বৈদ্যুতিক আলো:  মশার উৎপাত কমাতে হলে ঘরের বৈদ্যুতিক আলো হলুদ হতে হবে। বাল্ব সেলোফেনে জড়িয়ে দিতে হবে। ফলে আলো হলুদ হবে। দেখবেন মশা কমে গেছে। কারণ তা হলুদ আলো থেকে দূরে থাকে।
৩. সুগন্ধি ব্যবহার: মশা সুগন্ধি থেকে দূরে থাকে। রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে শরীরে আতর, সুগন্ধি, কিংবা লোশন মাখতে হবে। তা অনেক কম দেখা যাবে।
৪. চা-পাতা ও নিমপাতার ধোঁয়া:  ব্যবহৃত চা-পাতা ফেলে না দিয়ে ভালো করে রোদে শুকাতে হবে। শুকনো চা পাতার পোড়ানো ধোঁয়ায় ঘরের সমস্ত মশা, মাছি পালিয়ে যাবে। এছাড়া নিমপাতা পোড়ানোর ধোঁয়া তা তাড়ানোর জন্য খুবই কার্যকর।
৫. লেবু ও লবঙ্গের ব্যবহার: লেবু কেটে লবঙ্গের সঙ্গে রাখতে হবে। সেগুলো একটি প্লেটে করে ঘরের কোণায় রাখলে মশার উপদ্রব থেকে মুক্ত থাকা যায়।   
৬. নিশিন্দা ও নিমপাতার গুঁড়ো:  নিশিন্দা ও নিমপাতার গুঁড়ো ধুনোর সঙ্গে ব্যবহার করলে মশার হাত থেকে রেহাই পাওয়া যায়।
৭. কর্পূর ও রসুনের ব্যবহার: মশা কর্পূরের গন্ধ একেবারেই সহ্য করতে পারে না। পানিভর্তি বাটিতে ৫০ গ্রামের কর্পূরের ট্যাবলেট মিশিয়ে ঘরের কোণে রাখতে হবে। তাৎক্ষণিকভাবেই মশা একেবারে গায়েব হয়ে যাবে। এছাড়া রসুনের স্প্রে মশা তাড়াতে খুবই কার্যকারী প্রাকৃতিক উপায়। এক্ষেত্রে ৫ ভাগ পানিতে ১ ভাগ রসুনের রস মেশাতে হবে। মিশ্রণটি একটি বোতলে ভরে শরীরের যেসব স্থানে মশা কামড়াতে পারে সেসব জায়গায় স্প্রে করতে হবে।
৮.  নিমের তেল ও পুদিনার ব্যবহার: মশা তাড়ানোর বিশেষ একটি গুণ রয়েছে নিমের। সমপরিমাণ নিমের তেল ও নারকেল তেল মিশিয়ে ত্বকে লাগিয়ে নিলে তা ধারে কাছেও ভিড়বে না। সেই সঙ্গে ত্বকের অ্যালার্জি, ইনফেকশনজনিত নানা সমস্যাও দূর হবে। একটি ছোট গ্লাসে একটু পানি নিয়ে তাতে ৫ থেকে ৬ গাছি পুদিনা খাবার টেবিলে রেখে দিলে ঘরের সব মশা পালাবে।
৯. পানি জমিয়ে রাখা যাবে না:  খেয়াল রাখতে হবে যেন কোথাও পানি জমে না থাকে। ঘরের আনাচে-কানাচে কিংবা উঠোনে পানি জমে থাকলে সেখানে মশার বংশবিস্তার হয়। 
১০. যেসব রঙের পোশাক পরা যাবে না: কালো, নীল ও লাল কাপড় এড়িয়ে চলতে হবে। কারণ এগুলো মশার পছন্দ। তারা গরমের প্রতিও সংবেদনশীল। তাই ঘর ঠাণ্ডা রাখতে হবে।