ঢাকা, ২৫ আগস্ট রোববার, ২০১৯ || ৯ ভাদ্র ১৪২৬
LifeTv24 :: লাইফ টিভি 24
১৭১

আরবের খেজুরের নামে তুঘলকি কারবার

প্রকাশিত: ১১:৫১ ২৪ এপ্রিল ২০১৯  


আরবের মক্কা-মদীনা অথবা মধ্যপ্রাচ্যের খেজুরের নামে বাংলাদেশে চলছে রীতিমওেতা তুঘলকি কারবার।

নিম্নমানের মেয়াদোত্তীর্ণ খেজুর নয়া মোড়কে নানান আকর্ষণীয় নামে ছেড়ে দেয়া হয়েছে বাজারে। ক্রেতারা হরহামেশাই কিনছেন এসব অস্বাস্থ্যকর খেজুর। আর ঠকছেন নিত্যদিন।

২০১৭ সালে মেয়াদোত্তীর্ণ হয় বাংলাদেশে আমদানি করা কয়েক টন খেজুরের। ২০১৮ সালে মেয়াদ শেষ হওয়ায় পুরাতন স্টিকার ছিঁড়ে নতুন স্টিকার লাগানো হয়, যেটার মেয়াদ ছিল ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত।

 

এরপর মেয়াদোত্তীর্ণ এই খেজুরগুলোকেই মদিনা থেকে আমদানিকৃত সাঊদি ডেটস (আম্বার-এ) বলে চালিয়ে দেয়া হচ্ছে। এগুলোর মেয়াদোত্তীর্ণের নতুন তারিখ দেয়া হয়েছে ২০২০ সালের ১ আগস্ট।

 

র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে অভিনব এই প্রতারণার সন্ধান মিললো রাজধানীর পুরান ঢাকায়।

বাদামতলীর মেসার্স মৌসুমি ট্রেডার্সে মঙ্গলবার অভিযান পরিচালনা করেন র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলম ও র‌্যাব-১০। 

অভিযানে তাদের গুদাম ও শোরুম থেকে দেড় থেকে দুই বছর আগের মেয়াদোত্তীর্ণ খেজুর জব্দ করা হয়েছে। এসময় ২৬ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। এছাড়া তিনজনকে ২ বছরের জেল দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি প্রতিষ্ঠানটির কোল্ড স্টোরেজ, গুদাম ও শো-রুমকে সিলগালার সিদ্ধান্ত দেন ম্যাজিস্ট্রেট।

 

সাজাপ্রাপ্ত তিন ম্যানেজার হলেন - ফারুক, তানভীর ও শফিকুলে। এছাড়াও একজন মালিক হাজী তারেক আহম্মেদ বর্তমানে পলাতক রয়েছে। তার বিরুদ্ধে বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা হবে বলে জানান ম্যাজিস্ট্রেট।

 

অভিযানের শুরুতে মৌসুমি ট্রেডার্সের দুইটি গুদামে যায় র‌্যাব। সেখানে বিপুল পরিমাণে পচা ও মেয়াদোত্তীর্ণ খেজুর মজুত দেখতে পায়। মেয়াদোত্তীর্ণ খেজুরের প্যাকেট ছিঁড়ে নতুন চকচকে প্যাকেটে ঢুকিয়ে নতুন করে মেয়াদোত্তীর্ণের তারিখের স্টিকার লাগানো হচ্ছিল।


এই বিভাগের আরো খবর