ঢাকা, ১৯ জুন বুধবার, ২০২৪ || ৫ আষাঢ় ১৪৩১
good-food
৮১

পুরুষের বন্ধ্যাত্বের ৫ কারণ

লাইফ টিভি 24

প্রকাশিত: ১১:০৭ ১ জুন ২০২৪  

কোনো দম্পতি সন্তানলাভে ব্যর্থ হলে সবার আগে স্ত্রীর সন্তান জন্মদানের ক্ষমতা নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়। কারণ বন্ধ্যাত্বের সমস্যা পুরুষের তুলনায় নারীদের মধ্যে বেশি দেখা যায়। তার মানে এই নয় যে পুরুষের ক্ষেত্রে এই সমস্যা হয় না। সংখ্যায় তুলনামূলক কম হলেও পুরুষদের এই সমস্যা উপেক্ষা করার সুযোগ নেই। পুরুষদের মধ্যে বন্ধ্যাত্ব বরং একটি জটিল এবং সূক্ষ্ম বিষয় যা পরিবার পরিকল্পনাকে অনেকাংশে প্রভাবিত করে।

 

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, লাখ লাখ মানুষ বন্ধ্যাত্বের সমস্যার সম্মুখীন হয়। এতে বলা হয়েছে যে, সারা বিশ্বে প্রতি ছয়জনের মধ্যে একজন দম্পতি বন্ধ্যাত্ব ভোগ করে। ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ হেলথে প্রকাশিত একটি সমীক্ষায় বলা হয়েছে যে, প্রায় ২০% ক্ষেত্রে পুরুষ সম্পূর্ণরূপে দায়ী এবং সমস্ত বন্ধ্যাত্বের ক্ষেত্রে আরও ৩০% থেকে ৪০% ক্ষেত্রে আংশিকভাবে দায়ী হতে পারে। চলুন জেনে নেওয়া যাক পুরুষের বন্ধ্যাত্বের সম্ভাব্য কারণগুলো-

 

১. হরমোনজনিত ব্যাধি

বিশেষজ্ঞদের মতে, পুরুষদের বন্ধ্যাত্বের একটি বড় কারণ হলো হরমোনজনিত সমস্যা। হাইপোগোনাডিজম, অর্থাৎ টেস্টোস্টেরন এবং টেস্টিস দ্বারা প্রজনন সম্পর্কিত অন্যান্য হরমোনের অপর্যাপ্ত উৎপাদন বন্ধ্যাত্বের কারণ হতে পারে। সেইসঙ্গে মস্তিষ্কের গোড়ায় অবস্থিত পিটুইটারি গ্রন্থির ব্যাধিও হরমোন উৎপাদনকে প্রভাবিত করতে পারে, শুক্রাণু উৎপাদনকে প্রভাবিত করতে পারে।

 

২. শারীরিক এবং কাঠামোগত ব্যাধি

ভ্যারিকোসেল এমন একটি অবস্থা যেখানে অণ্ডকোষের মধ্যে শিরার বৃদ্ধি এবং বেলুনিং অণ্ডকোষের তাপমাত্রাকে পরিবর্তন করতে পারে। এটি শুক্রাণু উৎপাদনকে ব্যাহত করে। যা বন্ধ্যাত্বের দিকে নিয়ে যায়। রেট্রোগ্রেড ইজাকুলেশনে বীর্য লিঙ্গ দিয়ে বের হওয়ার পরিবর্তে মূত্রথলিতে প্রবেশ করে, যা পুরুষদের বন্ধ্যাত্বের কারণ হতে পারে। এছাড়াও যথাক্রমে এপিডিডাইমাইটিস, অরকাইটিস এবং যৌনবাহিত সংক্রমণের মতো সংক্রমণ শুক্রাণুর স্বাস্থ্যকে প্রভাবিত করতে পারে। শুক্রাণু পরিবহন ব্যবস্থায় ত্রুটি যেমন শুক্রাণু পরিবহনের বিভিন্ন অংশে বাধাও বন্ধ্যাত্বের আরেকটি কারণ হতে পারে।

 

৩. লাইফস্টাইল ফ্যাক্টর

অস্বাস্থ্যকর জীবনযাপনের অভ্যাসের কারণে পুরুষের বন্ধ্যা হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। দীর্ঘস্থায়ী ধূমপান বা তামাক সেবন শুক্রাণুর গতিশীলতা, গুণমান এবং পরিমাণকে কমিয়ে দিতে পারে। অতিরিক্ত অ্যালকোহল সেবনের অভ্যাস টেস্টোস্টেরনের মাত্রা কমিয়ে দিতে পারে এবং ইরেক্টাইল ডিসফাংশন এবং শুক্রাণু উৎপাদন হ্রাস করতে পারে। স্থূল বা অতিরিক্ত ওজন সরাসরি শুক্রাণুর পরিমাণকে প্রভাবিত করতে পারে এবং হরমোনের মাত্রাও পরিবর্তন করতে পারে যা বন্ধ্যাত্বের দিকে নিয়ে যায়। এছাড়াও অস্বাস্থ্যকর ও অনিয়মিত খাবার খাওয়া এবং শারীরিক কার্যকলাপের অভাব সামগ্রিক স্বাস্থ্যকে নেতিবাচকভাবে প্রভাবিত করতে পারে, যা স্থূলতা এবং বন্ধ্যাত্বের কারণ হতে পারে।

 

৪. পরিবেশগত কারণ

কীটনাশক, ভেষজনাশক, ভারী ধাতু, জৈব দ্রাবক, রঙ এবং দূষণ শুক্রাণুর স্বাস্থ্যের ক্ষতি করতে পারে। উচ্চ তাপমাত্রার পরিবেশে বেশি থাকলে তাও সাময়িকভাবে শুক্রাণুর সংখ্যা হ্রাস করতে পারে।

 

৫. জেনেটিক ফ্যাক্টর

জেনেটিক্স বন্ধ্যাত্বের ক্ষেত্রে ভূমিকা পালন করতে পারে। ক্লাইনফেল্টার সিনড্রোম একটি জেনেটিক অবস্থা যেখানে একটি পুরুষ শিশু অতিরিক্ত এক্স ক্রোমোজোম নিয়ে জন্মগ্রহণ করে, এটি পুরুষের প্রজনন অঙ্গে ত্রুটি সৃষ্টি করতে পারে, যার ফলে টেস্টিকুলার ফাংশন এবং শুক্রাণু উৎপাদন প্রভাবিত হয়। অন্যান্য জেনেটিক ব্যাধি যেমন সিস্টিক ফাইব্রোসিস, কলম্যান সিন্ড্রোম শুক্রাণু নালীতে বাধা সৃষ্টি করতে পারে।