ঢাকা, ২৯ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার, ২০২০ || ১৪ আশ্বিন ১৪২৭
good-food
১১৮

বাংলাদেশে পাচারের আগেই উদ্ধার সোনার কোরআন

লাইফ টিভি 24

প্রকাশিত: ১৯:৫৩ ২ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

ভারতের পশ্চিমাঞ্চলীয় রাজ্য রাজস্থানে উদ্ধার করা হয়েছে মোঘল সম্রাট আকবরের আমলের একটি কোরআন। সেটি সোনায় লেখা বলে জানা গেছে। এ ঘটনায় একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।
কোরআনটি বাংলাদেশে পাচার করার চেষ্টা হচ্ছিল বলে জানিয়েছেন রাজস্থান পুলিশ। এর আনুমানিক মূল্য ১৬ কোটি রুপি। সেটি এদেশে কার কাছে পাচার করার চেষ্টা করা হচ্ছিল, তা জানতে গ্রেফতারকৃত ব্যক্তিকে জেরা করা হচ্ছে।
সব মিলিয়ে ১,০১৪ পাতার ওই কোরআনটি গত বছর ডাকাতি করে ছিনিয়ে নেয় ৩ ব্যক্তি। ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার সন্দেহে দু'জনকে আগেই গ্রেফতার করেছিল পুলিশ। আর বৃহস্পতিবার কোরআনসহ গ্রেফতার করা হয় তৃতীয় ব্যক্তিকে।
জয়পুর উত্তরের ডেপুটি পুলিশ কমিশনার রাজীব পাচার জানান, গত বছর ভিলওয়ারা জেলার এক বাসিন্দা যোগেন্দ্র সিং মেহতা পুলিশের কাছে অভিযোগ করেন, তার হেফাজতে থাকা একটি বহুমূল্য কোরআন কয়েকজন ব্যক্তি ছিনতাই করে নিয়ে গেছে।
তিনি বলেন, মি. মেহতার পূর্বপুরুষেরা সম্রাট আকবরের কাছ থেকে দান হিসেবে ঐতিহাসিক মণ্ডলগড় কেল্লা পেয়েছিলেন। সেখানেই সোনার অক্ষরে লেখা ওই কোরআন শরিফটি উনি পান। বন্ধু ও আত্মীয়স্বজনের মাধ্যমে সেটি বিক্রি করে দেয়ার চেষ্টা করছিলেন।
এ পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, কোরআনটি কেনার নাম করে ফাঁকা জায়গায় ডেকে নিয়ে গিয়ে সেটি ছিনতাই করা হয়। ওই ঘটনার পরে দু'জনকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। কিন্তু কোরআন শরিফটি তখন পাওয়া যায়নি।
কয়েকদিন আগে সূত্র মারফত পুলিশ জানতে পারে, একটি বহুমূল্য কোরআন কেউ বিক্রি করার চেষ্টা করছে। ফলে বিশেষ তদন্ত দল তৈরি করে তারা। পরে ক্রেতা সেজে যোগাযোগ করে ভাঁওয়ারি মীনা নামের এক ব্যক্তির সঙ্গে। বৃহস্পতিবার সে ওই কোরআনটি ক্রেতা রূপী পুলিশের কাছে বিক্রি করতে এলে হাতেনাতে তাকে ধরা হয়।
মি. পাচার জানান, জেরা করতেই ভাঁওয়ারী মীনা জানায়, সেটি বাংলাদেশে ১৬ কোটি রুপিতে বিক্রি করার চেষ্টা করছিল সে। তবে সেদেশে কার সঙ্গে যোগাযোগ করেছিল, সেটা এখনও বলেনি। আগে গ্রেপ্তার হওয়া তার দুই সঙ্গীকেও জেল থেকে নিয়ে এসে একসঙ্গে বসিয়ে জেরা করা হবে।