ঢাকা, ০৭ জুন রোববার, ২০২০ || ২৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭
good-food
১১৭

করোনাভাইরাস থেকে বাঁচতে গোমূত্র খেয়ে হাসপাতালে

লাইফ টিভি 24

প্রকাশিত: ২০:০৬ ১৯ মার্চ ২০২০  

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের ঝাড়গ্রাম জেলার এক বাসিন্দা করোনাভাইরাসের সংক্রমণ থেকে বাঁচতে গোমূত্র খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। শিবু গড়াই নামের ৪২ বছর বয়সী ওই ব্যক্তিকে দুই দিন হাসপাতালেও থাকতে হয়।
তিনি জানিয়েছেন, বেশ কিছুদিন আগে এক বোতল গোমূত্র দিয়ে তৈরি গো-আরক কিনেছিলাম। চারদিকে এত করোনাভাইরাস ছড়াচ্ছে, অনেকেই দেখছি গোমূত্র খাওয়ার কথা বলছে। তাই আমিও এক ছিপি খেয়েছিলাম। কিন্তু সঙ্গে সঙ্গেই গলা, বুক, পেট পুরো জ্বলে যাচ্ছিল। জল খেয়েও স্বস্তি পাইনি। তাই হাসপাতালে যেতে হয়েছিল।
বুকে, পেটে আর গলায় অসহ্য যন্ত্রণা পাওয়ার পর এখন শিবু গড়াই নিজেকেই দুষছেন। হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাওয়ার পরে তিনি বলেন, এতটাই জ্বালা যন্ত্রণা হচ্ছিল, কমজোরী কেউ খেলে তো মরেই যাবে। করোনাভাইরাস থেকে বাঁচতে কেউ যদি আধ-গেলাসও খায় গোমূত্র, তার যে কী অবস্থা হবে, কে জানে! বড় ভুল করে ফেলেছিলাম।
ভারতে করোনাভাইরাসের প্রকোপ যত বাড়ছে, ততই নানা দিকে গোমূত্র এ ভাইরাস সংক্রমণ থেকে বাঁচাতে পারে - এমন প্রচার চালাচ্ছেন কিছু ব্যক্তি ও সংগঠন। গো-সেবায় যুক্ত এক সংগঠক মাঞ্জিত সিং বলছেন, আমরা গো-সেবা করি ঠিকই। কিন্তু গোমূত্র পান করলে করোনাভাইরাস আটকানো যাবে-এ তত্ত্বের কোনও বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই। এসব অপপ্রচার চালানো হচ্ছে। সমাজে একটা ভুল বার্তা যাচ্ছে এতে।
দিল্লিতে রীতিমতো গোমূত্র পান করার পার্টি হয়েছে বলে খবর বেরিয়েছে। কলকাতাতেও বিজেপির এক স্থানীয় নেতা রাস্তায় মানুষকে গোমূত্র খাইয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। হুগলি জেলার ডানকুনিতে বোতলে ভরে গোমূত্র বিক্রি করতে গিয়ে গ্রেপ্তার হয়েছেন এক ব্যক্তি। আর উত্তর দিনাজপুরের রায়গঞ্জেও গোমূত্র খাওয়ানো হয়েছে।
বিজেপি যদিও বলছে গোমূত্র খাওয়ানোর ঘটনাটি তাদের দলীয় কার্যক্রম ছিল না। তবে একই সঙ্গে বিজেপি-র জাতীয় সচিব রাহুল সিনহা বলেন, গোমূত্র পান করে যে অনেক রোগ নিরাময় হয়, সেটা সনাতন যুগ থেকেই জানা আছে। কেউ যদি সেই বিশ্বাসে গোমূত্র পান করেন, তাতে বাধা দেয়া অনুচিত। কিন্তু গোমূত্র পান করলে করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঠেকানো যায় কি-না, সেটা জানা নেই।
অন্যদিকে চিকিৎসকরা বলছেন, শুধু গোমূত্র নয়, যেকোনও প্রাণীর বর্জ্য কখনই উপকারে আসতে পারে না।

বিশ্ব বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর