ঢাকা, ১৮ জুন শুক্রবার, ২০২১ || ৪ আষাঢ় ১৪২৮
good-food
৭৩

তিন সন্তানের ঘোষণায় চটেছেন চীনের নারীরা

লাইফ টিভি 24

প্রকাশিত: ২৩:০৫ ২ জুন ২০২১  

চীনা সরকার সম্প্রতি তিন সন্তান নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে। এতে চটেছেন দেশটির নারীরা। ব্যাপক প্রতিক্রিয়া দেখাচ্ছেন তারা। বেশির ভাগই তৃতীয় সন্তান নিতে রাজি নন। কারণ চীনের শহরগুলোতে সন্তান ভরণপোষণের খরচ অনেক। 


মানবসম্পদ বাড়াতে তিন সন্তান নীতি চালু করতে বাধ্য হয়েছে শি জিনপিং সরকার। দেশটির স্নাতকোত্তরের ছাত্রী ইয়ান জিয়াকি বলেন, আমার পরিচিত বহু নারীই তৃতীয় সন্তান জন্ম দেওয়ার কথা শুনলে ক্ষেপে যাচ্ছেন। তাদের সামনে ভুলেও ওই কথা বলবেন না।


বেইজিংয়ের বাসিন্দা দুই সন্তানের বাবা ২৯ বছরের ইয়াং শেনগাই বলেন, দেখুন আমাদের অত টাকা নেই। বাড়িতে আরও একজনের জন্য বাড়তি জায়গা নেই। তাই আমরা তৃতীয় সন্তান চাই না। যখন আমাদের দ্বিতীয় সন্তান জন্ম নেয়, তখন স্বাভাবিকভাবেই সবকিছু প্রায় অর্ধেক হয়ে যায়। এখন দুজনের মধ্যে সব কিছু ৫০ শতাংশ করে ভাগ করা হচ্ছে। তাই তৃতীয় সন্তান জন্ম দেওয়ার কোনো যুক্তি আমরা দেখছি না।


চীন সরকারের তিন সন্তান নীতি নিয়ে ‘ইউনিভার্সিটি অব উইসকনসিন-ম্যাডিসন’-এর গবেষক ওয়াই ফুকশিয়ান বলেন, দীর্ঘদিনের সরকারি নীতির ফলে একটি মাত্র সন্তান জন্ম দেওয়া বা নিঃসন্তান থাকায় চীনের সামাজিক প্রথা হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই অবস্থায় তা কতটুকু কার্যকর হবে দেখার বিষয়।


২০১৬ সালে চীন এক শিশু নীতি থেকে সরে আসে। এরপর থেকে দম্পতিরা দুটি করে সন্তান নিতে পারতেন। ১৯৬০-এর দশকের পর সন্তান জন্মের হার দেশটিতে সবচেয়ে কম। ২০২০ সালে সেখানে ১ কোটি ২০ লাখ শিশুর জন্ম হয়েছে। 


জাতীয় জরিপ ব্যুরো জানিয়েছে, চীনে প্রজননের হার ১ দশমিক ৩। দেশটিতে জনসংখ্যা স্থিতিশীল রাখার জন্য যে জন্মহার থাকা প্রয়োজন, তার চেয়ে কম এই হার।