ঢাকা, ০৬ জুন শনিবার, ২০২০ || ২৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭
good-food
৮৪

করোনাভাইরাস মোকাবেলায় বেতনের অর্ধেক দিলেন টাইগাররা

লাইফ টিভি 24

প্রকাশিত: ১৯:২৫ ২৫ মার্চ ২০২০  

করোনাভাইরাস মোকাবেলায় সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিলেন বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের ক্রিকেটাররা। এক মাসের বেতনের অর্ধেক সরকারি তহবিলে অনুদান দেয়ার সিদ্বান্ত নিয়েছেন তামিম-মুশফিক-মাশরাফিরা।
সর্বমোট ২৭ জন খেলোয়াড় তাদের মাসিক বেতনের অর্ধেক অনুদান দিচ্ছেন। এদের মধ্যে ১৭ জন বিসিবি চুক্তিবদ্ধ খেলোয়াড়। বাকি ১০ জন সম্প্রতি জাতীয় দলের হয়ে খেলেছেন।
বাংলাদেশের ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবালের মাসিক বেতন ৬ লাখ ৫০ হাজার টাকা। মাসিক বেতনের ৫০ শতাংশ, অর্থাৎ ৩ লাখ ২৫ হাজার টাকা অনুদান দিচ্ছেন তিনি।
ক্রিকেটের তিন ফরম্যাটে সাবেক টাইগার অধিনায়ক মুশফিকুর রহিমের মাসিক বেতন ৬ লাখ ২০ হাজার টাকা। মাসিক বেতনের ৫০ শতাংশ, অর্থাৎ ৩ লাখ ১০ হাজার টাকা অনুদান দিচ্ছেন তিনি।
সম্প্রতি বাংলাদেশ ওয়ানডে অধিনায়কত্ব ছেড়ে দিয়েছেন মাশরাফি। নতুন চুক্তিতে না থাকলেও সম্প্রতি জাতীয় দলের হয়ে খেলা ২৭ খেলোয়াড়ের মধ্যে ছিলেন তিনি। পূর্ব চুক্তিতে ম্যাশের মাসিক বেতন ছিল ৪ লাখ ৫০ হাজার। নিয়নুযায়ী, সম্প্রতি জাতীয় দলের হয়ে খেলার কারণে ২ লাখ ২৫ হাজার টাকা অনুদান দেবেন তিনি।
বিষয়টি জানাতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের শরণাপন্ন হন তামিম-মুশফিকদের মতো জাতীয় দলের সিনিয়র খেলোয়াড়রা। ফেসবুকের মাধ্যমে অনেকেই বিবৃতি দিয়েছেন।
বিবৃতিতে তারা বলেন, পুরো বিশ্ব এখন করোনাভাইরাসের বিপক্ষে লড়াই করছে। দিনে দিনে বাংলাদেশেও করোনাভাইরাসের সংক্রমণ আরও বাড়ছে। আমরা ক্রিকেটাররা, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এ প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের বিপক্ষে সবাইকে সচেতন করতে সর্বাত্মক চেষ্টা করছি।
বিবৃতিতে বলা হয়,তবে আমরা মনে করি, মানুষের সচেতনতা বাড়ানোর সঙ্গে আমাদেরও অনেক কিছু করার আছে। বিসিবির কেন্দ্রীয় চুক্তিতে থাকা ১৭ জন খেলোয়াড় এবং আরও ১০ জন খেলোয়াড় যারা সম্প্রতি জাতীয় দলের হয়ে খেলেছেন, সর্বমোট ২৭ জন করোনা মোকাবেলা করতে মাসিক বেতনের অর্ধেক দিচ্ছি। কর দেয়ার পর আর্থিক সহায়তার সংখ্যা হবে প্রায় ২৫ লাখ।
এতে আরও বলা হয়, মারণঘাতী এ ভাইরাস মোকাবেলার জন্য এ অর্থ হয়তো খুব বেশি নয়। কিন্তু আমরা যদি নিজেদের অবস্থান থেকে অবদান রাখতে পারি, তবে এ মহামারী ভাইরাসের বিপক্ষে বড় পদক্ষেপই হবে। আমরা যদি দায়িত্ব নিতে পারি এবং অন্যের অবদানের সমালোচনা না করে আন্তরিকভাবে অবদান রাখার চেষ্টা করি, তা হলে করোনার বিপক্ষে এ যুদ্ধে আমরা জিততে পারব। সবাই দয়া করে বাড়িতে থাকুন, নিরাপদে থাকুন। সবাই ভালো থাকুন ও আমাদের দেশকে সুরক্ষিত রাখুন।
মহামারী করোনাভাইরাসের জন্য সরকার থেকে এখনো কোনও তহবিল গঠন করা হয়নি। তাই এ অনুদান কোথায় দেয়া হবে, বিষয়টি নিয়ে বিসিবির সঙ্গে আলোচনা করেছেন খেলোয়াড়রা। এমনটা নিশ্চিত করেছেন ক্রিকেট অপারেশন্স ম্যানেজার সাব্বির খান।
এদিকে রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর) বুধবার নিশ্চিত করেছে, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বাংলাদেশে আরও ১ জনসহ মোট ৫ ব্যক্তি মারা গেছেন। এখন পর্যন্ত দেশে আক্রান্ত ব্যক্তির সংখ্যা ৩৯।
গেল সোমবার, বাংলাদেশ সরকার ১০ দিনের সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে। যা আগামীকাল থেকে শুরু হয়ে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত চলবে। ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসের বিপক্ষে লড়াই করতেই এ সিদ্বান্ত।
জরুরি পরিষেবা বাদে সব সরকারি-বেসরকারি অফিস বন্ধ থাকবে। স্কুল-কলেজ-ইউনিভার্সিটি আগামী ৯ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ থাকবে। গ্রাহকদের আর্থিক লেনদেনের সুবিধার্থে ব্যাংকগুলো উন্মুক্ত থাকবে সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত। তবে লেনদেন হবে সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত।
ইতোমধ্যে, প্রতিটি বিভাগীয় প্রশাসনে সহায়তার জন্য বাংলাদেশের সশস্ত্র বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। জনগণকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে এবং করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে সর্তকতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে জেলা প্রশাসন।