ঢাকা, ১৭ অক্টোবর বৃহস্পতিবার, ২০১৯ || ২ কার্তিক ১৪২৬
LifeTv24 :: লাইফ টিভি 24
৩৯

চাইলেই রশিদ-মুজিবদের ছক্কা মারা যায় না:মোসাদ্দেক

প্রকাশিত: ২০:৪৩ ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯  


বছর খানেক আগের কথা। ভারতের বিপক্ষে টেস্ট অভিষেক হয় রশিদ খানের। ওই ম্যাচে বেদম পিটুনি খান তিনি। শেখর ধাওয়ান, মুরালি বিজয়, হার্দিক পান্ডিয়াদের তাণ্ডবে খরচ করেন ১৫০ রান। বিনিময়ে পান মাত্র ১ উইকেট।
সীমিত ওভারের ক্রিকেটে রশিদের বেধড়ক মার খাওয়ার উদাহরণ আরো টাটকা। ওয়ানডে বিশ্বকাপে তাকে গলির বোলারের মতো পিটিয়েছেন ইংলিশরা। খরুচে বোলারের তালিকায় রেকর্ড বইয়ে নাম লিখিয়ে ছেড়েছেন। ২০১৬ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে আফগান লেগস্পিনারকে বেধড়ক পিটিয়েছিলেন এবি ডি ভিলিয়ার্স। তাকে সাবলীলভাবে খেলেন বিশ্বমানের প্রায় সব ব্যাটসম্যানরা।
কিন্তু বাংলাদেশের ক্ষেত্রে প্রেক্ষাপটটা সম্পূর্ণ ভিন্ন। রশিদ খানের সামনে পড়লে কাঁপাকাঁপি শুরু করেন সাকিব-মুশফিকরা। ক্রিকেটটাই ভুলে যান তারা। তবে শুধু রশিদ খান নয়, অফস্পিনার মুজিব-উর- রহমানও ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠেন টাইগারদের বিপক্ষে। অখ্যাত জহির খানও ভুগিয়েছেন চট্টগ্রাম টেস্টে। 
মিরপুরে আফগানিস্তানের বিপক্ষে হারের পর অধিনায়ক সাকিব বলেন স্কিলের ঘাটতির কথা। এদিন অধিনায়কের সঙ্গে সুর মিলিয়ে একই কথা বললেন তরুণ মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতও।
সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে স্কিলের ব্যাপারটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ। আফগানিস্তানের বেশিরভাগই রিস্ট স্পিনার। চাইলেই তাদের সবসময় ছয়-চার মারতে পারবেন না। স্কিলেরও একটু ব্যাপার আছে। আমার মনে হয়, আমরা যেভাবে বাস্তবায়ন করছি; সব মোটামুটি ঠিক আছে। কিছু জায়গায় একটু ঘাটতি আছে। এ কারণে হয়তোবা ছোট ছোট দূরত্ব তৈরি হচ্ছে। অল্প রানে আমরা ম্যাচ হেরে যাচ্ছি। আমি মনে করি, এগুলো যত কমানো যায়, যত বেরিয়ে আসা যায়; ততো আমাদের জন্য ভালো।
তবে এ সমস্যা থেকে উত্তরণের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন মোসাদ্দেকরা। আরেকটি হিসাব নিকাশ করে ক্রিকেট খেললে জয়ের সম্ভাবনা বেড়ে যাবে বলে মনে করেন  এ তরুণ। মোসাদ্দেক বলেন, আফগানিস্তানের সঙ্গে বিষয়টা হয় কি তাদের স্পিনার নিয়ে সবসময় কথাটা উঠে আসে বেশি। আমরা ম্যাচ হারছি ১৫/২০ রানে। ওদের যে স্পিনাররা আছে, আমরা যদি আরেকটু হিসাব কষে খেলি বা আরেকটু...যে ভুলগুলো করছি তা কমানো যায়। টি-টোয়েন্টিতে ১৬০ রান হবে এটাই স্বাভাবিক। টার্গেটে আমরা ১৪৫ বা ১৫০ করতেছি। যেসব জায়গায় আমরা একটু বেশি তাড়াহুড়া করছি, সেমব জায়গায় দ্রুত ভুল কমাতে পারলে ম্যাচ জেতার সম্ভাবনা বেড়ে যাবে।
মোসাদ্দেকের দৃষ্টিতে, ২৫ রানের হারটাও ছোট। কিন্তু বাস্তবতা হলো টি-টোয়েন্টিতে এ হারকে বিশালই ধরা হয়। আফগানদের বিপক্ষে হারের পর এটা স্বীকার করে নিয়েছেন অধিনায়ক সাকিবও। সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের আত্মবিশ্বাসই তলানিতে। আর আফগানদের বিপক্ষে খেলতে গেলে এটা আরও নিচে নেমে যায়। মানসিকভাবেই পিছিয়ে থাকে তারা। আর এ সুযোগটাই বারবার নিচ্ছেন রশিদ খানরা।