ঢাকা, ০৩ ডিসেম্বর শুক্রবার, ২০২১ || ১৯ অগ্রাহায়ণ ১৪২৮
good-food
১৪০

ঢাকায় বাড়ছে দাবদাহের প্রবণতা

লাইফ টিভি 24

প্রকাশিত: ২০:০৭ ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১  

ঢাকায় বেড়েই চলেছে দাবদাহ বা হিটওয়েভের প্রবণতা। বাংলাদেশ রেডক্রিসেন্ট সোসাইটি, জার্মান রেড ক্রস এবং বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর পরিচালিত এক গবেষণায় এ তথ্য উঠে এসেছে। এর ফলে বাড়ছে স্ট্রোকে আক্রান্ত হওয়াসহ নানা ধরণের স্বাস্থ্য ঝুঁকি।

 

এ বছরের এপ্রিয়ে গত ২৬ বছরের সর্বোচ্চ তাপমাত্রার রেকর্ড ভেঙ্গে তাপমাত্রার ক্ষেত্রে নতুন রেকর্ড হয়েছে। গত ২৫ এপ্রিল দেশে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছিলো ৪১ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এর আগে ২০১৪ সালে চুয়াডাঙ্গায় ৪২ ডিগ্রি তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছিলো বলে জানাচ্ছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

 

বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থার মতে একটি জায়গার দৈনিক যে গড় তাপমাত্রা সেটি ৫ ডিগ্রি বেড়ে গেলে এবং সেটি পরপর পাঁচদিন চলমান থাকলে তাকে হিটওয়েভ বলা হয়। বাংলাদেশের আবহাওয়া বিভাগে তাপমাত্রা বেড়ে ৩৬ থেকে ৩৮ ডিগ্রি হলে সেটিকে মৃদু হিটওয়েভ, ৩৮-৪০ ডিগ্রি হলে মধ্যম মাত্রার হিটওয়েভ, ৪০-৪২ডিগ্রি হলে তীব্র বা মারাত্মক এবং ৪২ ডিগ্রির বেশি হল অতি তীব্র হিটওয়েভ হিসেবে বিবেচনা করে।

 

উপরোক্ত গবেষণার প্রতিবেদনে বাংলাদেশকে তিনটি সময়কালে ভাগ করা হয়েছে- অক্টোবর থেকে ফেব্রুয়ারি ঠাণ্ডা ও শুষ্ক, মার্চ থেকে মে গরমকাল এবং জুন থেকে অক্টোবর মৌসুমি বৃষ্টিপাতের সময়।

 

গবেষণায় ৪৪ বছরের আবহাওয়া বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে এপ্রিল, মে ও জুন মাসে ঢাকায় সবচেয়ে বেশি গরম অনুভূত হয়। আবার অগাস্ট, সেপ্টেম্বর ও অক্টোবরে দেশের কোন কোন জায়গায় বেশ গরম অনুভূত হলেও সেটি তাপপ্রবাহ বা হিটওয়েভের পর্যায়ে যায় না।
 

তবে সাম্প্রতিক এক পর্যালোচনায় আবহাওয়া অধিদপ্তর দেখেছে যে মধ্য মার্চ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সময়ের মধ্য হিট বা তাপমাত্রা বাড়ার প্রবণতা দেখা যাচ্ছে।