ঢাকা, ২০ আগস্ট মঙ্গলবার, ২০১৯ || ৫ ভাদ্র ১৪২৬
LifeTv24 :: লাইফ টিভি 24
১২৭

দ্বিতীয় দফা বৈঠকে সিদ্ধান্ত  

খুশির ঈদ বুধবারই

প্রকাশিত: ০০:৩০ ৫ জুন ২০১৯  


বুধবার-ই পবিত্র ঈদুল ফিতর। ঈদ মোবারক।

জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির দ্বিতীয় বৈঠকের পর জানানো হয়, আজ মঙ্গলবার শাওয়াল মাসের সরু–বাঁকা চাঁদ দেখা গেছে।

এদিন সন্ধ্যায় ইসলামিক ফাউন্ডেশন বায়তুল মুকাররম মসজিদের সভাকক্ষে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির প্রথম বৈঠক হয়। কিন্তু সেসময় কোথাও চাঁদ দেখার খবর মেলেনি। পরে রাত ১১ টায় আবার বৈঠকে বসে কমিটি। ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ও জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভাপতি শেখ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ সভায় সভাপতিত্ব করেন।

এতে ১৪৪০ হিজরি সনের পবিত্র শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখা সম্পর্কে সব জেলা প্রশাসন, ইসলামিক ফাউন্ডেশন-এর ৬৪ জেলা কার্যালয়, বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর এবং মহাকাশ গবেষণা ও দূর অনুধাবন প্রতিষ্ঠান থেকে প্রাপ্ত তথ্য নিয়ে পর্যালোচনা করে এ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। বলা হয়, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বাংলাদেশের আকাশে  শাওয়ালের চাঁদ হেসেছে। বুধবার থেকে পবিত্র এ মাস গণনা শুরু হবে। বুধবার ১ শাওয়াল সারাদেশে পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপিত হবে।

চাঁদ দেখার মধ্য দিয়ে এক মাস ধরে সংযম সাধনার ইতি ঘটলো। এরই মধ্যে শুরু হয়ে গেছে শুভেচ্ছা বিনিময়। রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

উৎসবের  দিনটি শুরু হবে ঈদের নামাজ আদায়ের মধ্য দিয়ে। সেই লক্ষ্যে বিভিন্ন ঈদগাহে প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। প্রস্তুত রাজধানীর জাতীয় ঈদগাহ প্রাঙ্গণ। এবার গ্রীষ্মকালে হচ্ছে ঈদ। তবে বৃষ্টি বা দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া প্রতিবন্ধকতা হিসেবে দাঁড় হতে পারে। এজন্য অবশ্য বিকল্প ব্যবস্থা রাখা হয়েছে জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে।

নামাজের পরপরই ঈদগাহগুলোতে চিরচেনা এবং কাঙ্ক্ষিত দৃশ্যের অবতারণা হবে। প্রত্যেক মুসলমান একে অপরের সঙ্গে কুশল বিনিময় করবেন। শ্রেণি-বর্ণ-বয়স নির্বিশেষে হবে সেই আলিঙ্গন। ভ্রাতৃত্বের বন্ধনের এ এক মধুর বহিঃপ্রকাশ।

এ ঈদের একটি বড় অনুষঙ্গ নতুন পোশাক। মাসজুড়ে বা অনেকে এর আগে থেকেই এর প্রস্তুতি শুরু করেন। এ বছর ঢাকাসহ বিপণিবিতানগুলোতে প্রতিবারের মতোই ভিড় দেখা গেছে। ব্যবসায়ীদের কেউ কেউ অবশ্য মন্দাভাবের কথা বলেছেন। এরপরও কেনাকাটার কমতি ছিল না। রাজধানী বা দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহরগুলোর রাস্তার তীব্র জট বা বিপণিবিতানের কষ্ট-দেয়া ভিড় এর প্রমাণ। নতুন কেনা পোশাক-জুতা বা অন্যান্য সামগ্রী নিয়ে শিশুদের আনন্দই বেশি। বড়রাও কম যান না। পোশাকগুলো ইতিমধ্যে দেরাজ খুলে অনেকবারই দেখা হয়ে গেছে। আনন্দের দিন হবে ভাঁজ ভাঙা। ঈদ মোবারক।


এই বিভাগের আরো খবর