ঢাকা, ১৮ সেপ্টেম্বর বুধবার, ২০১৯ || ৩ আশ্বিন ১৪২৬
LifeTv24 :: লাইফ টিভি 24
৩১

আসামের ১৯ লাখ মানুষকে বিদেশি ঘোষণা!

প্রকাশিত: ২১:২৩ ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯  


আসামের নাগরিক তালিকা থেকে বাদ পড়া ১৯ লাখ বাসিন্দাকে বিদেশি বলে ঘোষণা করেছেন ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। রোববার আসাম সফরে দেয়া ভাষণে প্রত্যেক অবৈধ অভিবাসীকে ভারতছাড়া করারও হুঁশিয়ারি দেন তিনি। 
এছাড়া সংবিধানের ৩৭১ অনুচ্ছেদে উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যগুলোকে দেয়া বিশেষ সুবিধা সরকার কখনই বাতিল করবে না বলে প্রতিশ্রুতি দেন অমিত। এরই মধ্যে আবারো আসামের নাগরিক তালিকা প্রত্যাখ্যান করেছেন বিজেপির বিধায়ক শিলাদিত্য দেব।

গেলো ৫ আগস্ট কাশ্মীরের স্বায়াত্বশাসন এবং কাশ্মীরীদের বিশেষ মর্যাদার সাংবিধানিক অধিকার বাতিল করে ক্ষমতাসীন বিজেপি। এরপর অন্যান্য রাজ্যের বিশেষ সুবিধা ভোগকারী বাসিন্দারাও আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। শঙ্কা, যেকোনো মুহূর্তে বাতিল হতে পারে তাদের বিশেষ অধিকারও।

রোববার আসামে গিয়ে উত্তর পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যের বাসিন্দাদের অমিত শাহ
প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন, তাদের বিশেষ অধিকার কখনই বাতিল করবে না মোদি সরকার।

ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, অনুচ্ছেদ ৩৭০ একটি অস্থায়ী ব্যবস্থা ছিল। ৩৭০ এবং অনুচ্ছেদ ৩৭১-এর মধ্যে ব্যাপক পার্থক্য রয়েছে। ৩৭১ উত্তর-পূর্বাঞ্চলের বিশেষ অধিকার। পার্লামেন্টে বিষয়টি বলেছি। এ অঞ্চলের আটটি রাজ্যের মূখ্যমন্ত্রীদের উপস্থিতিতে আবারও পরিষ্কারভাবে বলছি, কেন্দ্র কখনো অনুচ্ছেদ ৩৭১-এ স্পর্শ করবে না।

আসামের নাগরিক তালিকাকে সময়ের দাবি বলেও আখ্যা দেন ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। তালিকা থেকে বাদ পড়াদের একমাত্র আদালত বিদেশি ঘোষণার এখতিয়ার রাখলেও এদিন অমিত নিজেই তাদের বিদেশি বলে আখ্যা দেন।

অমিত শাহ বলেন, এনআরসি নিয়ে অনেকে অনেক কথা বলছেন। বিভিন্ন প্রশ্ন তুলছেন। এনআরসি সময়ের প্রেক্ষাপটেই তৈরি হয়েছে। স্পষ্ট করে একটি বার্তা দিতে চাই। ভারতীয় সরকার একজন অবৈধ অভিবাসীকেও দেশে থাকতে দেবে না।

গত ৩১ আগস্ট চূড়ান্ত নাগরিক তালিকা থেকে বাদ পড়েন ১৯ লাখের বেশি নাগরিক। যাদের বেশিরভাগই বাংলাভাষী হিন্দু ধর্মাবলম্বী। একে ষড়যন্ত্র বলছে স্থানীয় বিজেপি।

আসাম বিজেপি বিধায়ক শিলাদিত্য দেব বলেন, এনআরসি একটি ষড়যন্ত্রের অংশ। যার মাধ্যমে মুসলিমদের সহায়তা করা হয়েছে। হিন্দুদের নাগরিক তালিকা থেকে বাদ দেয়া হয়েছে। এনআরসির পুরো প্রক্রিয়াটিই দুর্নীতিতে ভরা।

আসামের মতো অন্যান্য রাজ্যেও নাগরিক তালিকা তৈরির দাবি উঠছে বিজেপি সমর্থিত বিভিন্ন মহল থেকে। ইতোমধ্যে মহারাষ্ট্র সরকার, রাজ্যের সম্ভাব্য নাগরিক তালিকা থেকে যারা বাদ পড়বে, তাদের আটকে রাখার জন্য বন্দিশালা নির্মাণে জমি ক্রয়ে তোড়জোর শুরু করেছে। 

মুম্বাই থেকে ২০ কিলোমিটার দূরে ওই বন্দিশালা নির্মাণের পরিকল্পনা চলছে। যদিও ভারতীয় গণমাধ্যমের এমন দাবি অস্বীকার করেছে স্থানীয় সরকার।


এই বিভাগের আরো খবর