ঢাকা, ২৭ নভেম্বর শনিবার, ২০২১ || ১৩ অগ্রাহায়ণ ১৪২৮
good-food
৩৮

সিরিজ হেরে যা বললেন মাহমুদউল্লাহ

লাইফ টিভি 24

প্রকাশিত: ২১:২০ ২০ নভেম্বর ২০২১  

মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে পাকিস্তানের কাছে ৮ উইকেটে হারের জন্য দলের ব্যাটিং ব্যর্থতাকেই দায়ী করছেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। এই নিয়ে টি-টোয়েন্টিতে টানা সাত ম্যাচে হারলো টাইগাররা।

 

গত এক মাসে শেষ ১০টি ম্যাচে বাংলাদেশ মাত্র দুটিতে জিতেছে। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের বাছাইপর্বে ওমান এবং পাপুয়া নিউগিনির বিপক্ষে দু’টি ম্যাচে জয় পেয়েছে মাহমুদউল্লাহরা। শনিবার (২০ নভেম্বর) পাকিস্তানের কাছে পরাজিত হয়ে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ হার নিশ্চিত হয়ে গেছে তাদের।

 

ম্যাচ শেষে মাহমুদউল্লাহ বলেন, ‘ আমি মনে করি, গত পাঁচ-ছয় মাস যাবত পেস এবং স্পিন উভয় বিভাগেই আমাদের বোলিং ইউনিট দারুণ করেছে। ব্যাটিং ইউনিটের ভালো করতে হবে।’ 

 

প্রথম ম্যাচে ৭ উইকেটে ১২৭ রান করেছিলো বাংলাদেশ। তবে দ্বিতীয় ম্যাচে ৭ উইকেটে ১০৮ রান করে টাইগাররা। এতে ব্যাটারদের হতাশার পারফরমেন্স ফুটে উঠে।

 

তবে পাকিস্তানি ফখর জামানের ব্যাটিংয়ে এটাই প্রমাণিত হয়েছে, এটা ব্যাটিং সহায়ক উইকেট ছিল। কারণ, ব্যাট হাতে ৫১ বলে অপরাজিত ৫৭ রান করে দলকে ১১ বল বাকি থাকতে ৮ উইকেটের জয় এনে দেন তিনি।

 

ম্যাচসেরা জামান বলেন, ‘গতকালের চেয়ে এটি ভালো উইকেট ছিল। আদর্শ উইকেট নয়। তবে গতকালের চেয়েও ভালো। যখনই আপনি আপনার দেশের বাইরে খেলবেন, ম্যাচ জয় গুরুত্বপূর্ণ। তৃতীয় ম্যাচেও আমরা জয়ের চেষ্টা করবো।’

 

শুরুটা ভালো না হলেও, শান্ত ও আফিফের জুটিতে ঘুরে দাঁড়ায় বাংলাদেশ। তবে পরের দিকে ব্যাটারদের ব্যর্থতায় বড় সংগ্রহ করতে পারেনি বলে স্বীকার করেছেন মাহমুদউল্লাহ।

 

প্রথমে ব্যাট হাতে নেমে ২ ওভারের মধ্যে ওপেনারদ্বয়কে হারায় বাংলাদেশ। তখন দলের স্কোর ৫ রান। এরপর তৃতীয় উইকেটে ৪৬ রানের জুটি গড়েন শান্ত ও আফিফ। আর শেষের দিকে ডেথ ওভারে রান তুলতে পারেনি স্বাগতিকরা। শেষ ৫ ওভারে মাত্র ২৩ রান তুলে তারা। আর সেখানেই ম্যাচ হেরে গিয়েছিলো টাইগাররা।

 

মাহমুদউল্লাহ বলেন, ‘ আমরা ভালো শুরু করেছি, আফিফ ও শান্ত ভালো ব্যাটিং করেছে। আমি ও শান্ত জুটি গড়ার চেষ্টা করেছি। কিন্তু শেষ কয়েক ওভারে আমরা নিজেদের মেলে ধরতে পারেনি।’

 

তিনি বলেন, এই ফরম্যাটে বড় স্কোর করতে হলে একজন ব্যাটারকে ১৫ ওভার পর্যন্ত ব্যাট করা উচিত। আমি মনে করি আমাদের মতো দলের জন্য ১৫তম ওভার পর্যন্ত সেট ব্যাটার দরকার, আমরা তা করিনি।’

 

এদিন ফিল্ডাররা ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছেন। ব্যক্তিগত ২৬ রানে ম্যাচ সেরা জামানের ক্যাচ ফেলেন সাইফ হাসান। শেষ পর্যন্ত অপরাজিত ৫৭ রান করেন জামান।  রিজওয়ানের ক্যাচ ফেলেন তাসকিন আহমেদ। দুবারই বল হাতে ছিলেন লেগ-স্পিনার আমিনুল ইসলাম বিপ্লব।

 

মাহমুদউল্লাহ মনে করেন, তারা সেরাটা দেয়ার চেষ্টা করছেন। কিন্তু কোনও কিছুই ঠিক-ঠাক হচ্ছে না। ছেলেরা অনুশীলনে অনেক চেষ্টা করছে। ক্যাচ অনুশীলনও করছে। সব কিছু ঠিকঠাক করছে কিন্তু সুযোগ মিস করছে।’

খেলাধুলা বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর