ঢাকা, ২৬ নভেম্বর বৃহস্পতিবার, ২০২০ || ১২ অগ্রাহায়ণ ১৪২৭
good-food
৯৬

ব্যারিস্টার রফিক-উল হক আর নেই

লাইফ টিভি 24

প্রকাশিত: ১৬:০৭ ২৪ অক্টোবর ২০২০  

সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার রফিক উল আর নেই (ইন্নালিল্লাহি…রাজিউন)। বার্ধক্যজনিত ইউরিন ইনফেকশন এবং রক্তশূন্যতার কারণে শারীরিকভাবে দুর্বল হয়ে পড়ায় তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। 

 

শনিবার সকাল  ৮টার দিকে তিনি আদ-দ্বীন হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে থাকা অবস্থায় মারা যান। সাবেক  অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার রফিক উল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার আইনজীবী ছিলেন।

 

আদ-দ্বীন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মহাসচিব ডা. নাহিদ ইয়াসমীন জানান,  রাতে তাকে ভেন্টিলেশনে নেয়ার পর থেকেই সংকটাপন্ন অবস্থাতে ছিলেন।

 
 গত ১৫ অক্টোবর ব্যারিস্টার রফিক উল হককে ওই হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এরপর গত ২০ অক্টোবর রাতে শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে ভেন্টিলেশনে দেয়া হয়।

 

রফিক-উল হকের জন্ম ১৯৩৫ সালের ২ নভেম্বর কলকাতায়। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি নেওয়ার পর তিনি এলএলবি ডিগ্রি করেন। তিনি ১৯৬০ সালে কলকাতা উচ্চ আদালতে আইনজীবী হিসেবে কাজ শুরু করেন। পরে বার অ্যাট ল করেন যুক্তরাজ্য থেকে।

 

ব্যারিস্টার রফিক ১৯৬২ সালে ঢাকার উচ্চ আদালতে যোগ দেন। ১৯৭৫ সালে তিনি আপিল বিভাগে জ্যেষ্ঠ আইনজীবী হিসাবে তালিকাভুক্ত হন। ১৯৯০ সালে বাংলাদেশের অ্যাটর্নি জেনারেল করা হয়।
 

তিনি ১৯৬০ সালে কলকাতা উচ্চ আদালতে আইনজীবী হিসেবে কাজ শুরু করেন। পরে বার অ্যাট ল করেন যুক্তরাজ্য থেকে।

 

ব্যারিস্টার রফিক ১৯৬২ সালে ঢাকার উচ্চ আদালতে যোগ দেন। ১৯৭৫ সালে তিনি আপিল বিভাগে জ্যেষ্ঠ আইনজীবী হিসাবে তালিকাভুক্ত হন। ১৯৯০ সালে বাংলাদেশের অ্যাটর্নি জেনারেল করা হয়।

 

সেনা নিয়ন্ত্রিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার আমলে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা এবং বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াসহ অনেক রাজনীতিবিদের পক্ষে সুপ্রিম কোর্টে আইনি লড়াই করে আলোচনায় ছিলেন ব্যারিস্টার রফিক।

 

তিন দফা নামাজে জানাজা শেষে বিকেলে রফিক-উল হকের দাফন সম্পন্ন হয়। শনিবার  বেলা ৩টার কিছু আগে তাকে বনানী কবরস্থানে দাফন করা হয়।

 

সকাল ১০টা ৪০ মিনিটে রাজধানীর আদ-দ্বীন হাসপাতাল প্রাঙ্গণে রফিক-উল হকের প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এরপর মরদেহ পল্টনের বাসায় নেয়া হয়। বাদ জোহর বায়তুল মোকাররম মসজিদ প্রাঙ্গণে দ্বিতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।

 

বেলা দুইটার দিকে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি প্রাঙ্গণে রফিক-উল হকের তৃতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। পরে লাশ দাফনের জন্য বনানীর কবরস্থানে নেওয়া হয়।

বাংলাদেশ বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর